crossorigin="anonymous">

আপনার কিডনি সুস্থ রাখতে ৭টি অভ্যাস অবলম্বন করুন

আপনার কিডনি সুস্থ রাখতে ৭টি অভ্যাস অবলম্বন করুন। 7 Habits To Adopt To Keep Your Kidneys Healthy. আপনি যদি আপনার কিডনিকে সুস্থ রাখতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই আপনার জীবনযাত্রার অভ্যাসে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। কি জানতে নিচে স্ক্রোল করুন।

কিডনি মানবদেহের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ যা শরীর থেকে টক্সিন, অতিরিক্ত পানি এবং বর্জ্য পদার্থ নির্মূল করার জন্য ডিটক্সিফিকেশন প্রক্রিয়া বহন করে। এই শিম-আকৃতির অঙ্গগুলিকে তাদের সর্বোত্তম স্বাস্থ্যের মধ্যে থাকতে হবে যাতে শরীরকে স্বাভাবিকভাবে সবকিছু প্রক্রিয়া করতে সহায়তা করে। আজকাল নানা কারণে কিডনির সমস্যা বাড়ছে। লাইফস্টাইল ফ্যাক্টরগুলি স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা বজায় রাখতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই সুস্থ কিডনির জন্য আমাদের অবশ্যই অনুশীলন নিশ্চিত করতে হবে। এই নিবন্ধে, ডঃ অতুল ইঙ্গলে, কনসালট্যান্ট নেফ্রোলজিস্ট এবং ট্রান্সপ্ল্যান্ট ফিজিশিয়ান, ডিরেক্টর, ডিপার্টমেন্ট অফ নেফ্রোলজি, ফোর্টিস হিরানন্দানি হাসপাতাল, ভাশি আপনার কিডনি ভালো অবস্থায় আছে তা নিশ্চিত করতে কিডনি স্বাস্থ্য টিপস শেয়ার করেছেন।

আপনার কিডনি সুস্থ রাখতে ৭টি অভ্যাস অবলম্বন করুন, কিডনি সুস্থ রাখতে করণীয়, কিডনি সুস্থ রাখতে যা খাবেন, কিডনি সুস্থ রাখতে, কিডনি সুস্থ রাখতে খাবার, কিডনি সুস্থ রাখতে কি করতে হবে, কিডনি সুস্থ রাখার উপায়, কিডনি সুস্থ রাখার খাবার, কিডনি সুস্থ রাখার উপায় কি, কিডনী সুস্থ রাখার উপায়, কিভাবে কিডনি সুস্থ রাখা যায়, kidneys healthy foods, kidneys healthy, kidneys healthy meals, kidneys healthy or not, healthy kidneys signs, healthy kidneys diet, healthy kidneys and liver,  healthy kidneys do how many things, healthy kidneys excrete,
7 Habits To Adopt To Keep Your Kidneys

7 Healthy Habits for Kidney Health

স্বাস্থ্যকর কিডনির জন্য এখানে কিছু ভাল অভ্যাস রয়েছে যা আপনাকে কিডনির সমস্যা এড়াতে অবশ্যই অবলম্বন করতে হবে

Be active and fit

একটি প্রধান অভ্যাস যা আপনাকে সারাজীবন সুস্থ ও ফিট রাখতে পারে তা হল শারীরিক সক্রিয়তা। যতক্ষণ না আপনার শরীর ফিট এবং তার সর্বোত্তম আকারে থাকে, আপনি সুস্থ থাকেন। কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে নিয়মিত ব্যায়াম করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি রক্ত সঞ্চালনকে বাড়িয়ে তুলবে যা হার্ট এবং অন্যান্য অঙ্গকে সুস্থ রাখে। সামগ্রিক সুস্থতা প্রচার করতে প্রতিদিন কিছু ধরণের শারীরিক কার্যকলাপ করুন।

আরও পড়ুন –
২০২২ সালে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের সেরা উপায়।
কপিরাইটিং করে অর্থ উপার্জন করুন।

 

Regulate blood sugar

শুধু ডায়াবেটিস রোগীদের নয়, প্রত্যেকেরই রক্তে শর্করার মাত্রা পরীক্ষা করা উচিত। উচ্চ রক্তে শর্করা আপনার কিডনির ক্ষতি করতে পারে কারণ যখন রক্তে শর্করা অনিয়মিত হয় বা রক্তের কোষগুলি রক্তে উপস্থিত গ্লুকোজ ব্যবহার করতে অক্ষম হয়, তখন এটি আপনার কিডনির উপর ভার বাড়ায়। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগের ঝুঁকি বেশি থাকে।

Monitor Blood Pressure

উচ্চ রক্তে শর্করা এবং উচ্চ রক্তচাপ উভয়ই আপনার কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য সমানভাবে বিপর্যয়কর। কিডনির স্বাস্থ্যকর অভ্যাসগুলির মধ্যে একটি হল নিয়মিত আপনার রক্তচাপ নিরীক্ষণ করা। উচ্চ রক্তচাপ কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস, কার্ডিওভাসকুলার রোগ এবং কিডনি রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। যদি আপনার রক্তচাপ ঘন ঘন বৃদ্ধি পায়, তাহলে কিডনি রোগ (গুলি) হওয়া প্রতিরোধ করার জন্য আপনাকে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে।

Healthy diet and weight management

স্বাস্থ্যকর ডায়েট আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্যই নয়, আপনার কিডনিরও প্রয়োজন। অতিরিক্ত ওজন বা স্থূলতা কিডনি সমস্যার ঝুঁকি বাড়ায় এবং তাই ওজন নিয়ন্ত্রণ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একটি স্বাস্থ্যকর ওজন এবং সঠিক BMI থাকা সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি। আপনি যদি আপনার কিডনি সুস্থ রাখতে চান তবে তৈলাক্ত, নোনতা এবং জাঙ্ক ফুড খাওয়া এড়িয়ে চলুন। ঋতুভিত্তিক পণ্য রাখুন এবং শুধুমাত্র ঘরে রান্না করা খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। শুধু ওজন কমানোর জন্য কোনো ক্র্যাশ ডায়েট করবেন না কারণ এটি দীর্ঘমেয়াদে স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

Drink a lot of fluids: প্রচুর পরিমাণে তরল পান করুন

জল হল সেরা ডিটক্সিফাইং পানীয় যা পুরো শরীর পরিষ্কার করে। আপনি যদি স্বাস্থ্যকর তরল যেমন জল এবং তাজা ফলের রস গ্রহণ করেন তবে আপনি সহজেই শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদানগুলিকে মুক্ত করতে পারেন। পানি পান করা শুধুমাত্র শরীরকে হাইড্রেটেড রাখে না কিন্তু এটি কিডনির কার্যকারিতা এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে। আপনার কিডনি সুস্থ রাখতে প্রতিদিন অন্তত ৮-১০ গ্লাস পানি পান করুন। এছাড়া পানি পান করলে কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমে যায়।

 

Avoid smoking and drinking: ধূমপান এবং মদ্যপান এড়িয়ে চলুন

আপনি যদি ধূমপান করেন বা অ্যালকোহল পান করেন তবে আপনার কিডনি সুস্থ আছে তা নিশ্চিত করতে এই অভ্যাসগুলি বন্ধ করুন। নিকোটিন রক্ত ​​প্রবাহ হ্রাস করে এবং সময়ের সাথে সাথে রক্তনালীগুলিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে যা কিডনি সহ শরীরে রক্ত ​​সরবরাহ ব্যাহত করে। অ্যালকোহল সমানভাবে বিপর্যয়কর কারণ এটি শরীরকে ডিহাইড্রেট করে এবং কিডনির কার্যকারিতা ব্যাহত করে।

Avoid taking unnecessary OTC medicines: অপ্রয়োজনীয় ওটিসি ওষুধ গ্রহণ এড়িয়ে চলুন

আপনি যদি প্রতিটি ছোট থেকে বড় সমস্যার জন্য একটি বড়ি পপ করতে চান তবে এটি আপনার কিডনিকে হুমকি দিতে পারে। আপনি যদি ঘন ঘন ওভার-দ্য-কাউন্টার ওষুধ গ্রহণ করেন, তাহলে আপনার স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে কারণ এই ওষুধগুলি দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব ফেলে।

Conclusion

পূর্বোক্ত অভ্যাসগুলি ছাড়াও, আপনাকে অবশ্যই বছরে বা দুই বছরে একবার কিডনি ফাংশন পরীক্ষা করাতে হবে। এটি আপনার কিডনির কার্যকারিতার ট্র্যাক রাখতে সাহায্য করবে এবং এমন কিছু অন্তর্নিহিত সমস্যা আছে কিনা যার জন্য চিকিৎসা সহায়তা প্রয়োজন। কিডনির সমস্যাগুলিকে উপেক্ষা করবেন না কারণ এটি সময়ের সাথে সাথে কিডনি ব্যর্থতার মতো দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা তৈরি করতে পারে।

আরও পড়ুন –
আপনি কি জানেন কোন খাবারগুলি আমাদের ত্বককে সুন্দর রাখে?
ফর্সা ও উজ্জ্বল ত্বক পাওয়ার প্রাকৃতিক উপায়।
চুলের বৃদ্ধিতে জবা ফুলের উপকারিতা।

Share This Post

Leave a Reply

WordPress Embed

https://your-site.com/privacy/

Copy and paste this URL into your WordPress site to embed

WordPress Embed

https://www.your-site.org/about-us/

Copy and paste this URL into your WordPress site to embed